বিজয় অর্জনে ভেদাভেদ ভুলে শর্তহীন ঐক্য গড়ে তুলুনঃ রকিবুল ইসলাম বকুল - জনতার আওয়াজ
  • আজ সন্ধ্যা ৬:১০, রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি
  • jonotarawaz24@gmail.com
  • ঢাকা, বাংলাদেশ

বিজয় অর্জনে ভেদাভেদ ভুলে শর্তহীন ঐক্য গড়ে তুলুনঃ রকিবুল ইসলাম বকুল

নিজস্ব প্রতিবেদক, জনতার আওয়াজ ডটকম
প্রকাশের তারিখ: রবিবার, মার্চ ১৩, ২০২২ ৬:০৬ অপরাহ্ণ পরিবর্তনের তারিখ: রবিবার, মার্চ ১৩, ২০২২ ৬:০৬ অপরাহ্ণ

 

ফকির শহিদুল ইসলাম,খুলনা
বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা, খুলনা-৩ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ও মহানগর আহবায়ক কমিটির সদস্য আলহাজ রকিবুল ইসলাম বকুল বলেছেন, বাংলাদেশের স্বাধীন সার্বভৌম অস্তিত্ব থাকবে কিনা আজ সেই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। রাতের ভোটের দখলদার সরকার জনগনের সকল অধিকার কেড়ে নিয়ে জাতির কাঁধে জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসেছে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের শ্লোগান ’বাংলাদেশ যাবে কোনপথে ফয়সাল হবে রাজপথে’ স্মরণ করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, আমাদের সামনে এই শ্লোগান বাস্তবায়নের সময় এসেছে। সারা দেশে দল পুনর্গঠন পক্রিয়া শুরু হয়েছে। ফ্যাসিবাদী দু:শাসন হঠাতে, গণতন্ত্রকে মুক্ত করতে, জনগনের অধিকার ফিরিয়ে দিতে, আপোসহীন নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করতে এবং আগামীর রাষ্ট্রনায়ক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে বিএনপির সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীকে সকল ভেদাভেদ ভুলে শর্তহীন ঐক্য গড়ে তোলার আহবান জানান তিনি।
শনিবার (১২ মার্চ) খুলনা মহানগর বিএনপির আহবায়ক কমিটির প্রথম সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় রকিবুল ইসলাম বকুল এ আহবান জানিয়েছেন। নগরীর একটি অভিজাত হোটেলে বিকেল সোয়া ৩টায় গুরুত্বপূর্ণ এ সভা শুরু হয়।
সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপির আহবায়ক শফিকুল আলম মনা। সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিনের সঞ্চালনায় সভায় আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির আহবায়ক আমীর এজাজ খান ও ১নং যুগ্ম আহবায়ক আবু হোসেন বাবু। সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন শেখ শাহিনুল ইসলাম পাখী। বিশেষ দোয়া মোনাজাত পরিচালনা করেন ১নং যুগ্ম আহবায়ক মো: তারিকুল ইসলাম জহির। বিকেল পৌনে ৩টায় শুরু হওয়া এ সভা শেষ হয় রাত প্রায় ১২ টায়।
সভার শুরুতে প্রারম্ভিক বক্তব্য এবং আহবায়ক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক ও সদস্যবৃন্দের বক্তব্য শেষে দিকনির্দেশনামূলক সমাপনী বক্তব্য রাখেন সভার প্রধান অতিথি রকিবুল ইসলাম বকুল।
খুলনা বিএনপির রাজনীতি সারা দেশের জন্য একটি মডেল উল্লেখ করে তিনি বলেন, সবাইকে সাথে নিয়ে পাশে নিয়ে আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধভাবে দলকে শক্তিশালী করতে হবে। রাজপথের দখল নিতে চাইলে দলকে শক্তিশালী করার কোন বিকল্প নাই। তিনি বলেন, মামলা আপনি বাসায় বসে থাকলেও খাবেন, আন্দোলন করলেও খাবেন। সুতরাং মামলা যদি খেতেই হয়, যুদ্ধ করে জয়লাভ করেই মামলা খাবো আমরা। তাই বিভেদ ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ হবার আহবান জানিয়ে আন্দোলনের প্রস্ততি গ্রহনের পরামর্শ দেন তিনি।
সভাপতির বক্তৃতায় মহানগর বিএনপির আহবায়ক শফিকুল আলম মনা পূর্ণাঙ্গ আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দেওয়ায় দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে ধন্যবাদ জানান।
সভা থেকে বিএনপির চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুস্বাস্থ্য, দীর্ঘায়ু, তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত বানোয়াট মামলায় সাজা প্রত্যাহার এবং উন্নত চিকিতসার জন্য বিদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানানো হয়।
সভা থেকে খুলনা মহানগরের ৮টি থানায় বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন তদারকের জন্য মহানগর বিএনপির একজন যুগ্ম আহবায়ক ও কয়েকজন সদস্যের সমন্বয়ে ৮টি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এই কমিটি থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিট কমিটির নেতৃত্ব প্রত্যাশীদের তথ্য সংগ্রহ অভিযান পরিচালনা করবে বলে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
সভা থেকে দল পুর্নগঠনের অংশ হিসেবে প্রথমে ভোট কেন্দ্র ভিত্তিক ইউনিট কমিটি গঠন, এরপর কাউন্সিলের/সমন্বয়ের মাধ্যমে ওয়ার্ড কমিটি এবং সবশেষে থানা কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
সভা থেকে আন্দোলন সংগ্রামে দায়েরকৃত মামলাগুলো পরিচালনার জন্য আহবায়ক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক অ্যাডভোকেট নুরুল হাসান রুবার নেতৃত্বে আইনজীবীদের সমন্বয়ে একটি আইনী সহায়তা কমিটি গঠন করা হয়।
সভা থেকে আন্দোলন সংগ্রামে হামলা মামলা নির্যাতনের শিকার নেতাকর্মীদের সহায়তার জন্য একটি সামাজিক স্বাস্থ্য সহায়তা সম্পর্কিত কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
সভা থেকে একজন যুগ্ম আহবায়ক ও তিনজন সদস্যের সমন্বয়ে একটি দাফতরিক কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
সভা থেকে আহবায়ক কমিটির সদস্য সাংবাদিক এহতেশামুল হক শাওন ও আহবায়ক কমিটির সদস্য সাংবাদিক মিজানুর রহমান মিলটনের সমন্বয়ে একটি মিডিয়া কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়।
সভা থেকে খুলনা মহানগরে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের ক্ষেত্রে পুলিশের বাঁধা, হামলা, উস্কানিমূলক আচরণ ও খুলনা থানার ওসির ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণের তীব্র নিন্দা জানানো হয়। খুলনায় পুলিশী হামলায় বিএনপি কর্মী বাবুল কাজী নিহত হওয়া, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফখরুল আলমের চোখ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া, স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মসূচি থেকে দলীয় কর্মী রাতিন ও নাহিদকে ধরে নিয়ে চুল কেটে দেওয়ার ঘটনাকে মানবাধিকারের চরম লংঘন আখ্যায়িত করে দোষীদের শাস্তি ও পুলিশকে আইনানুগ আচরণ করার আহবান জানানো হয়।

সভায় উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন যুগ্ম আহ্বায়ক তরিকুল ইসলাম জহির, কাজী মো. রাশেদ, স ম আ: রহমান, সৈয়দা রেহেনা ইসা, অ্যাডভোকেট নুরুল হাসান রুবা, কাজী মাহমুদ আলী, আজিজুল হাসান দুলু, শের আলম সান্টু, বদরুল আনাম খান, মাহাবুব হাসান পিয়ারু, চৌধুরী শফিকুল ইসলাম হোসেন, একরামুল হক হেলাল, মাসুদ পারভেজ বাবু, শেখ সাদি, হাসানুর রশিদ চৌধুরী মিরাজ, সদস্য জালাল শরিফ, শেখ জাহিদুল ইসলাম, আব্দুর রাজ্জাক, হাফিজুর রহমান মনি, আশফাকুর রহমান কাকন, ওয়াহিদুর রহমান দিপু, বেগ তানভিরুল আযম, শাহিনুল ইসলাম পাখি, রোবায়েত হোসেন বাবু, মুরশিদ কামাল, আরিফ ইমতিয়াজ খান তুহিন, অ্যাডভোকেট মাসুম রশিদ, কে এম হুমায়ন কবির, বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুস, সৈয়দ সাজ্জাদ আহসান পরাগ, কাজী মিজানুর রহমান, এহতেশামুল হক শাওন, একরামুল কবীর মিল্টন, জহর মীর, নাজির উদ্দিন আহমেদ নান্নু, শেখ ইমাম হোসেন, হাবিবুর রহমান বিশ্বাস, হাসান উল্লাহ বুলবুল, অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী বাবু, শরিফুল আনাম, শেখ জামাল উদ্দিন, আবু সাঈদ হাওলাদার আব্বাস, আফসার উদ্দিন, মোল্লা ফরিদ আহমেদ, আনসার আলী, নাসির খান, শেখ আব্দুস সালাম, শেখ আলমগীর হোসেন, কাজী শাহ নেওয়াজ নিরু, আব্দুর রহমান ডিনো, তারিকুল ইসলাম, খন্দকার হাসিনুল ইসলাম নিক, মিজানুর রহমান মিলটন, শফিকুল ইসলাম শফি, আক্কাস আলী, শেখ ফারুক হোসেন, মুজিবুর রহমান, আজিজা খানম এলিজা ও মাসুদ খান বাদল। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মহানগর ছাত্রদলের আহবায়ক ইসতিয়াক আহমেদ ইস্তি ও সদস্য সচিব মো: তাজিম বিশ্বাস।

Print Friendly, PDF & Email
 
 
জনতার আওয়াজ/আ আ
 

জনপ্রিয় সংবাদ

 

সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com