বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রেরণ বাড়াতে ব্যয় কমিয়ে আনার বিকল্প নেই - জনতার আওয়াজ
  • আজ দুপুর ১:৩৭, শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
  • jonotarawaz24@gmail.com
  • ঢাকা, বাংলাদেশ

বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রেরণ বাড়াতে ব্যয় কমিয়ে আনার বিকল্প নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক, জনতার আওয়াজ ডটকম
প্রকাশের তারিখ: সোমবার, জুলাই ৮, ২০২৪ ১:৩৮ অপরাহ্ণ পরিবর্তনের তারিখ: সোমবার, জুলাই ৮, ২০২৪ ১:৩৮ অপরাহ্ণ

 

এম এনাম হোসেন , আরব আমিরাত

দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থা করছে প্রবাসী বাংলাদেশিরা। তাই ২০২৩ সালে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ২২.১৬৮ বিলিয়ন ডলার, যা দেশের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। গত বছর দেশে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে ৩ শতাংশের বেশি। তবে রেমিট্যান্স পাঠাতে প্রবাসীদের খরচ বেড়েছে। এমনকি দক্ষিণ এশিয়ার পাঁচটি ব্যয়বহুল রেমিট্যান্স করিডরের মধ্যে তিনটিই বাংলাদেশের। অথচ বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রেরণ বাড়াতে ব্যয় কমিয়ে আনার বিকল্প নেই।

বিশ্বব্যাপী অভিবাসন নিয়ে কাজ করা ‘দ্য গ্লোবাল নলেজ পার্টনারশিপ অন মাইগ্রেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট’ বা নোমাড-এর সাম্প্রতিক প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে গেছে। বিশ্বব্যাংকের সহযোগী এ সংস্থাটির ‘রেমিট্যান্স স্লোড ইন ২০২৩, এক্সপেক্টেড টু গ্রো ফাস্টার ইন ২০২৪’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ২০০ ডলার পাঠানোর তুলনামূলক ব্যয়ের হিসাব তুলে ধরা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২৩ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে বিশ্বের সব অঞ্চলের চেয়ে কম খরচে রেমিট্যান্স এসেছে দক্ষিণ এশিয়ায়। কিন্তু ২০২২ সালের চতুর্থ প্রান্তিকের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, এ অঞ্চলে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ বেড়েছে। এ সময়ে প্রতি ২০০ ডলার রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ বেড়েছে ১৫৮ বেসিস পয়েন্ট। যেখানে ২০২২ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে দক্ষিণ এশিয়ায় রেমিট্যান্স প্রেরণে প্রতি ২০০ ডলার খরচ হয় ৪.২ শতাংশ। ২০২৩ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে খরচ বেড়ে হয় বৈশ্বিক গড় ৬.৪ শতাংশ থেকে কিছুটা কম। এ অঞ্চলের সর্বনিম্ন খরচের পাঁচটি করিডরের মধ্যে চারটিতেই খরচ কমেছে। এর মধ্যে মালয়েশিয়া থেকে ভারতে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ সবচেয়ে কম। ২০২৩ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে এ করিডরে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ পড়েছে ২.২ শতাংশ।

যেখানে আগের বছরের এ সময়ে খরচ পড়েছিল ২.৯ শতাংশ। কিন্তু এ অঞ্চলের সবচেয়ে ব্যয়বহুল পাঁচটি করিডরেই খরচ বেড়ে হয়েছে ১১.৭ থেকে ১৩.৬ শতাংশ পর্যন্ত। সবচেয়ে বেশি খরচ বেড়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স প্রেরণে। এ করিডরে খরচ বেড়েছে ১৭২ শতাংশ। এই দুই দেশের মধ্যে ২০২২ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে প্রতি ২০০ ডলার প্রেরণে যেখানে খরচ পড়েছে ৫ শতাংশ, সেখানে ২০২৩ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে খরচ পড়েছে ১৩.৬ শতাংশ। একই সময়ে যুক্তরাজ্য থেকে আফগানিস্তানে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ বেড়েছে ১৮ শতাংশ এবং সিংগাপুর-বাংলাদেশ করিডরে খরচ বেড়েছে ৪৬ শতাংশ।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, প্রতিবেশীদের চেয়ে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ বেশি। ২০২৩ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে মালয়েশিয়া থেকে ইন্ডিয়া রেমিট্যান্স প্রেরণে যেখানে খরচ পড়েছে ২.২ শতাংশ, সেখানে মালয়েশিয়া থেকে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ পড়েছে ১২.১ শতাংশ। সিংগাপুর থেকে ভারতে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ পড়েছে ২.৬ শতাংশ, অথচ সিংগাপুর থেকে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ পড়েছে ১১.৭ শতাংশ। এই সময়ে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে শ্রীলঙ্কায় রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ পড়েছে ২.৫ শতাংশ, এর বিপরীতে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ পড়ে ১৩.৬ শতাংশ। দক্ষিণ এশিয়ায় রেমিট্যান্স প্রেরণের সবচেয়ে কম খরচের পাঁচটি করিডরের কোনোটিতে বাংলাদেশ নেই। অথচ এ অঞ্চলের সবচেয়ে ব্যয়বহুল পাঁচটি করিডরের তিনটি বাংলাদেশের। বাকি দুটির মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ইন্ডিয়া রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ হয় ১১.৮ শতাংশ এবং যুক্তরাজ্য থেকে আফগানিস্তানে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ পড়ে ১২.৩ শতাংশ।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২৩ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে ২০০ মার্কিন ডলার প্রেরণে বিশ্ব জুড়ে গড় ব্যয় ছিল ৬.৪ শতাংশ, যা এক বছর আগের ৬.২ শতাংশ থেকে কিছুটা বেশি। এটি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) ৩ শতাংশের দ্বিগুণের বেশি। তবে এক্ষেত্রে আশার বিষয় হচ্ছে, ২০২৩ সালে ডিজিটাল মাধ্যমে রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ হয়েছে ৫ শতাংশ। যেখানে গতানুগতিক মাধ্যমে খরচ পড়েছে ৭ শতাংশ। সে হিসাবে ডিজিটাল মাধ্যমে খরচ কমেছে ২ শতাংশ। বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রযুক্তিগত উন্নয়ন রেমিট্যান্স প্রেরণে খরচ কমিয়ে দিচ্ছে।

২০২৩ সালে দক্ষিণ এশিয়ায় রেমিট্যান্স আসে ১৮৬ বিলিয়ন ডলার, এ খাতে প্রবৃদ্ধি হয় ৫.২ শতাংশ। যেখানে আগের বছর ২০২২ সালে এ অঞ্চলে রেমিট্যান্স প্রবাহে প্রবৃদ্ধি ছিল ১২ শতাংশের বেশি। তবে ২০২৩ সালে দক্ষিণ এশিয়ায় এফডিআই ও ওডিআইয়ের চেয়ে বেশি এসেছে রেমিট্যান্স।

Print Friendly, PDF & Email
 
 
জনতার আওয়াজ/আ আ
 

জনপ্রিয় সংবাদ

 

সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ