রাস্তা রক্ষায় ২৮টি এক্সেল লোড কন্ট্রোল স্টেশন করা হবে : ওবায়দুল কাদের - জনতার আওয়াজ
  • আজ বিকাল ৩:২৫, বুধবার, ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৮ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি
  • jonotarawaz24@gmail.com
  • ঢাকা, বাংলাদেশ

রাস্তা রক্ষায় ২৮টি এক্সেল লোড কন্ট্রোল স্টেশন করা হবে : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক, জনতার আওয়াজ ডটকম
প্রকাশের তারিখ: বুধবার, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২৩ ২:৩১ অপরাহ্ণ পরিবর্তনের তারিখ: বুধবার, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২৩ ২:৩১ অপরাহ্ণ

 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আমরা রাস্তাগুলোকে রক্ষা করতে পারছি না। কিছুদিন পর পর রাস্তা নষ্ট হচ্ছে। রাস্তা রক্ষা করতে যা দরকার তা করতে হবে। ২৮টি এক্সেল লোড কন্ট্রোল স্টেশন স্থাপন করতে হবে।

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে সাউথ এশিয়া সাবরিজিওনাল ইকোনমিক কো-অপারেশন (সাসেক) ঢাকা-সিলেট করিডোর সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ওয়ার্ক প্যাকেজ-৩ এর চুক্তিস্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতি‌থি হি‌সে‌বে তিনি এসব কথা বলেন।

কাদের ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দে‌শের সড়ক যোগা‌যোগ ব‌্যবস্থায় যেখা‌নে সরকার বিপ্লব ঘটা‌চ্ছে, সেখা‌নে নতুন চার লে‌নের রাস্তায় কা‌জের মান কেন খারাপ হ‌চ্ছে? ফোরলেন দুই বছর পরে সংস্কার করতে হচ্ছে এই ফোর লেন করে লাভ কি?

‘‘ঢাকা-চট্টগ্রাম সড়ক দুই বছর পরে সংস্কার করতে হচ্ছে। এই জন্য আবার আলাদা প্রকল্প নিতে হচ্ছে। নবীনগর-চন্দ্রা ফোরলেন সড়ক এক বছর না যেতেই ছেড়া কাঁথার মতো জোড়াতালি অবস্থা, এই ফোরলেন দিয়ে কি হবে?’’

ওবায়দুল কা‌দের ব‌লেন, আমাদের কাজের মতো কাজ করতে হবে। আমাদের কোয়ালিটির বিষয়ে প্রথমে নজর দিতে হবে। আমাদের রাস্তুাগুলোকে রক্ষা করতে হবে। ২৮টি লোড কন্ট্রোল স্ট্রেশন হওয়ার কথা। কিন্তু এটা কবে হবে কেউ জানে না।

সাসেক ঢাকা-সিলেট করিডোর সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প ডিএস-৫ এর আওতায় সরাইল ইন্টারসেকশন হতে বুধন্তী বাস স্ট্যান্ড পর্যন্ত কাজের চুক্তি স্বাক্ষর হয়। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের অধীন সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর কর্তৃক ‘সাসেক ঢাকা-সিলেট করিডোর সড়ক উন্নয়ন’ এ প্রকল্পের উব্লিউপি-০৩ প্যাকেজের লট নং ডিএস-০৬ এর নির্মাণকাজ যৌথ উদ্যোগে চীন ও বাংলাদেশের তিনটি কোম্পানি বাস্তবায়ন করবে। এর মধ্যে চীনের কোম্পানি দুইটি হলো- চেসিইটিস ও এসএলজিসি এবং বাংলাদেশের পিডিএল। এতে খরচ ধরা হয়েছে এক হাজার ৮৫ কোটি ৩৪ লাখ ৭৬ হাজার ৮৩০ টাকা।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ঢাকা-সিলেট ফোরলেনে প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা ব্যয় হবে। এডিবি ঋণ দিচ্ছে ১৩ হাজার ২০০ কোটি টাকা। এডিবি ও সরকার মিলে কাজটা করছি। কাজটা ভালো ঠিকাদার পেয়েছে। কাজটা সময় মতো শেষ করবে বলে আমরা আশা করি।

এ সময় রাস্তা রক্ষাকে গুরুত্ব দেয়ার আহ্বান জা‌নি‌য়ে কাদের ব‌লেন, সওজ-এর প্রধান প্রকৌশলী যে আসে তাকে প্রথমে বলি আপনার প্রধান কাজ সড়ক রক্ষা করতে হবে। এক্সেল লোড কন্ট্রোল মেশিন স্থাপন করতে হবে। নবীনগর-চন্দ্রার কি অবস্থা? একেবারে বেহাল অবস্থা। আমি যা দেখছি তাই বলছি। এসব নিয়ে দরকার হয় সেমিনার করেন।

‘‘আমরা যদি স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে চেই তবে স্মার্ট রাস্তা দরকার। নতুন রাস্তার দরকার নাই, বিদ্যমান সড়ক স্মার্ট করতে হবে। চলমান প্রকল্পগুলো শেষ করবো কোয়ালিটি বজায় রেখে। এই মুহুর্তে সড়কের নতুন প্রকল্প দরকার নেই।’’

Print Friendly, PDF & Email
 
 
জনতার আওয়াজ/আ আ
 

জনপ্রিয় সংবাদ

 

সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ