‘সাধু সাবধান’চলছে আ'লীগ সরকারের জিরো-টলারেন্স অভিযান - জনতার আওয়াজ
  • আজ রাত ৯:০১, শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
  • jonotarawaz24@gmail.com
  • ঢাকা, বাংলাদেশ

‘সাধু সাবধান’চলছে আ’লীগ সরকারের জিরো-টলারেন্স অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক, জনতার আওয়াজ ডটকম
প্রকাশের তারিখ: মঙ্গলবার, জুলাই ২, ২০২৪ ৩:৫৮ অপরাহ্ণ পরিবর্তনের তারিখ: মঙ্গলবার, জুলাই ২, ২০২৪ ৩:৫৮ অপরাহ্ণ

 

জনতার আওয়াজ ডেস্ক
ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ সরকার সাম্প্রতিককালে দুর্নীতি বিরোধী অভিযান জোরদার করেছে। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকে শক্তিশালী করতে এবং দেশের আর্থিক ব্যবস্থার তত্ত্বাবধানে বেশ কিছু উচ্চ-প্রোফাইল ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে।

বিরোধী দলগুলো এই ক্র্যাকডাউনকে একতরফা বলে সমালোচনা করছে। তাদের মতে, শুধুমাত্র সরকারের সমালোচকদের লক্ষ্য করা হচ্ছে। তবে ২৪ জুন দুদক সচিব খোরশেদা ইয়াসমিনের সেগুনবাগিচায় কমিশনের সদর দপ্তরে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, দুদক একটি স্বাধীন প্রতিষ্ঠান। আমরা আইন ও বিধি মোতাবেক কার্যক্রম পরিচালনা করছি। এখানে কোনো চাপ নেই। সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজীর আহমেদ, সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদ এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক কর্মকর্তা মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) তদন্তের কার্যক্রম অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। দুদকের নথি অনুযায়ী এসকল ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অবৈধ সম্পদ আহরণ, রাষ্ট্রীয় তহবিল আত্মসাৎ এবং ব্যক্তিগত লাভের জন্য ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে। তদন্তকারী সংস্থাগুলির প্রাথমিক রক্ষণশীল অনুমান অনুসারে এখনও পর্যন্ত তিনজনের কাছ থেকে জব্দ করা সম্পদের মূল্য সামষ্টিকভাবে ৫ বিলিয়ন টাকার বেশি। এর মধ্যে রয়েছে দুবাই এবং মালয়েশিয়ার সম্পত্তি। আন্তর্জাতিকভাবে এই প্রচেষ্টাকে স্বাগত জানানো হয়েছে। আইএমএফ তার সর্বশেষ প্রতিবেদনে বলেছে যে চলমান সংস্কার এবং দুর্নীতিবিরোধী পদক্ষেপগুলি সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতাকে শক্তিশালী করতে এবং মহামারী পরবর্তী বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করতে সহায়তা করবে।

বেনজীর আহমেদের মামলায় দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের অভিযোগ তদন্ত করছে দুদক। ২৩ মে ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ মোহাম্মদ আশ-সামস জগলুল হোসেন দুদকের আবেদনের ভিত্তিতে বেনজীর আহমেদ, তার স্ত্রী এবং সন্তানদের মালিকানাধীন প্রায় ৩৪৫ বিঘা (১১৪ একর) জমি এবং ৩৩টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করার আদেশ দেন। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন বেনজির আহমেদ এবং তার পরিবারের সাথে সংযুক্ত ১৬টি সুবিধাভোগী মালিকের অ্যাকাউন্টও জব্দ করেছে।

১৬ মে জেনারেল আজিজ আহমেদ সম্পর্কে মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের এক বিবৃতি অনুসারে, তিনি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলিকে দুর্বল করা এবং সেনাপ্রধান হিসাবে তার মেয়াদকালে দুর্নীতিতে জড়িত থাকার জন্য তার বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। ১৫ জুন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, আজিজ আহমেদের অবসর গ্রহণের পরেও যদি কোনো অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে সেনাবাহিনী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে। আজিজ আহমেদের জন্য দুদক জমি ক্রয়ের রেকর্ড অনুসন্ধান করছে। মামলার নথি অনুসারে তিনি এবং তার পরিবার সাভারে তার সেনাবাহিনীর আমলে অধিগ্রহণ করা ১৫০ একরের বেশি জমির মালিক।

এদিকে, সাবেক এনবিআর কর্মকর্তা মতিউর রহমানের ক্ষেত্রে দুদক ও অন্যান্য সংস্থার তদন্তে ১৭ জুন প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে তার নামে ও উপনামে থাকা শত কোটি টাকার সম্পদ, জমি, কোম্পানি এবং তহবিল উন্মোচিত হয়েছে। মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পঞ্চম তদন্ত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন। তার পাশাপাশি তার আত্মীয়-স্বজনদের ১২টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বাজেয়াপ্ত এবং ৪টি এমএফএস অ্যাকাউন্ট স্থগিত করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

এছাড়া, প্রায় ৩০ বিলিয়ন টাকার দুর্নীতির অভিযোগে বিভিন্ন পর্যায়ের প্রায় ৫০ জন বর্তমান ও সাবেক সরকারি কর্মচারী দুদকের তদন্তের বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে। আরও কিছু উল্লেখযোগ্য ব্যক্তির মধ্যে রয়েছে দুইজন প্রাক্তন মন্ত্রী, তিনজন সচিব, একজন ব্যাংকের চেয়ারম্যান এবং রাষ্ট্রীয় সংস্থার ১২ জন পরিচালক। অভিযান অব্যাহত রেখে দুদক সম্প্রতি একটি বিশেষ সেলও চালু করেছে যা হঠাৎ করে সম্পদ বৃদ্ধির উৎস ক্রসচেক করতে গত এক দশকের ৫ হাজার প্রভাবশালী ব্যক্তির সম্পদের বিবরণী স্ক্যান করবে। কোন অসঙ্গতি ধরা পড়লেই তদন্ত করা হবে।

দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ বলেন কমিশন গত বছর ৫০ হাজারেরও বেশি অভিযোগ পেয়েছে যার মধ্যে ৪,৫০০টি প্রাথমিকভাবে আরও উন্নত ফরেনসিক অ্যাকাউন্টিং কৌশল দ্বারা পর্যালোচনা করা হয়েছে। দুদকের পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে চলতি বছরে এ পর্যন্ত ৬৫০ কর্মকর্তা শাস্তিমূলক মামলার মুখোমুখি হয়েছেন এবং প্রায় ১০০ শীর্ষ দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এই সমন্বিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে পর্যবেক্ষকরা ব্রেকিংনিউজকে বলেন, লোকজন দুদকের নতুন সক্রিয় কৌশলগুলি জেনে দুর্নীতিতে জড়িত হওয়ার আগে দুবার চিন্তা করবে। কারণ যদি ধরা পড়ে তবে তারা সম্ভবত সাম্প্রতিক হাই-প্রোফাইল মামলাগুলির মতো রাজনৈতিক সুরক্ষা ছাড়াই অভিযোগের মুখোমুখি হতে পারে। এটি ব্যবসায়িক পরিবেশের উন্নতি করতে পারে এবং আরও এফডিআই আকৃষ্ট করতে সহায়তা করতে পারে।

ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক আলী রীয়াজ উল্লেখ করেন যে এই পদক্ষেপগুলি বাংলাদেশে আইনের শাসনকে দায়বদ্ধতা এবং শক্তিশালী করার প্রতি আওয়ামী লীগ সরকারের প্রতিশ্রুতি প্রদর্শন করে। তার মতে, এই দুর্নীতি কেলেঙ্কারিগুলো বর্তমানে দুর্নীতির সাথে জড়িত অন্যদের কাছে এমন একটি বার্তা পাঠায় যে এর পরিণতি কী হতে পারে। চলতি বছরের প্রথম দিকে গণতান্ত্রিক নির্বাচনের মাধ্যেমে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। সরকারের দুর্নীতিগ্রস্তদের বিরুদ্ধে এই ক্র্যাকডাউনের লক্ষ্য রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের প্রতি জনগণের আস্থা বাড়ানোও। বিশেষজ্ঞদের মতে, এই অভিযানটি দুর্নীতি, মানবাধিকার এবং একটি স্তরের রাজনৈতিক খেলার ক্ষেত্রের মতো বিষয়ে নীতিগত অবস্থান বজায় রাখার প্রশাসনের অভিপ্রায় প্রদর্শন করে।

ইনসুলেটেড তদন্ত এবং আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে, দুদক এবং সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলি এমন বিদ্যুৎ নেটওয়ার্কগুলি ভেঙে দেওয়া চালিয়ে যাচ্ছে যা ব্যক্তিগত লাভের জন্য সরকারী অফিসের অপব্যবহারকে সক্ষম করে। বার্লিন-ভিত্তিক ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের দুর্নীতির ধারণা সূচকের তথ্য অনুসারে, নিয়মিত দুর্নীতিবিরোধী প্রচেষ্টা ধীরে ধীরে শাসনের মান উন্নত করছে যাতে বিদেশী বিনিয়োগ এবং উন্নয়ন সহায়তা আকৃষ্ট করা যায় যা সমগ্র দেশের জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে। দেশের গণতান্ত্রিক ও আর্থিক ব্যবস্থার ভবিষ্যত সরকারের বিশ্বাসযোগ্যতা, স্থায়ী দুর্নীতিবিরোধী সংস্কার এবং আইনের শাসনের সুষ্ঠু প্রয়োগের উপর নির্ভর করবে।

Print Friendly, PDF & Email
 
 
জনতার আওয়াজ/আ আ
 

জনপ্রিয় সংবাদ

 

সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ